লেবুর মধ্যে আরও একটি আস্ত লেবু, উদ্ভিদবিজ্ঞানের এই অত‍্যাশ্চর্য এবং বিরলতম ঘটনার সাক্ষী রইলো পশ্চিম মেদিনীপুর জেলার ঘাটাল।প্রকৃতির এক অদ্ভুত সৃষ্টির দেখা মিলল ঘাটালে।
বিদ্যাসাগর বিশ্ববিদ্যালয়েরই উদ্ভিদবিদ্যা ও বনবিদ্যা বিভাগের দ্বিতীয় সেমিস্টারের ছাত্রী মিমোসা ঘোষের ঘাটালের নোতুক গ্রামে বাড়ি । মিমোসা ঘোষের বাড়িতেই ঘটেছে, লেবুর মধ্যে আরও একটি আস্ত লেবুর ঘটনাটি। দুপুরে ভাত খাওয়ার সময় ভাতের সাথে ঘি ও লেবু খাওয়ার চল রয়েছে অনেক বাঙালি বাড়িতেই। আবার এই করোনা আবহে শুধু ভাতের সাথেই দিয়েই নয়, অনেকে লেবু জলও খাচ্ছেন বারবার। বাড়িতে লেবু কাটতে গিয়েই মিমোসা দেখেন একটি লেবুর ভেতরে আস্ত একটি লেবু। দেখে তিনি হতবাক হয়ে যান। অবাক হন বাড়ির অন্যান্য সদস্যরাও। উদ্ভিদবিদ্যা ও বনবিদ্যা বিভাগের ছাত্রী হয়েও বিষয়টি মিমোসার মনে বিস্ময়ের সৃষ্টি করে।লেবু কাটার ঘটনার কিছুক্ষণের মধ্যেই মিমোসা বিষয়টি ফোনে জানান বিদ‍্যাসাগর বিশ্ববিদ্যালয়ের উদ্ভিদবিদ‍্য ও বনবিদ‍্যা বিভাগে অধ্যাপক ড.অমলকুমার মন্ডলকে। পাশাপাশি ছবিও পাঠান। উদ্ভিদবিজ্ঞানী অমলবাবু জানান, এই উদ্ভিদে যে ফল থাকে তা হেসপেরিডিয়াম টাইপের ফলের মধ্যে পড়ে। ফলের মধ্যে খুব ছোট্ট পলিএমব্রায়োনিক বীজ দেখা যায়। এই বীজ কখনও কখনও ফলের মধ্যে আর একটি ফলের জন্ম দেয়। যদিও এই ফল বন্ধ্যাত্বযুক্ত ফল। এই ফল থেকে কোনও রকম গাছের বা বীজের সৃষ্টি হয় না। তবে এটা ঠিক যে, উদ্ভিদবিজ্ঞানের ক্ষেত্রে এটি একটি বিরলতম ঘটনা। এটিকে পার্শিয় পার্থেনোকার্পি বল হয়। তিনি আরও বলেন, এর আগে পেঁপের মধ্যে পেঁপে, কাঁঠালের মধ্যে কাঁঠাল, এমনকী স্কোয়াস গাছের মধ্যে ফলেও এমন দেখা গিয়েছিল। অমলবাবুর মতে, এই ধরণের যে কোনও ঘটনায় বিরল। তবে লেবুর মধ্যে লেবুর ঘটনাটি বিরলতম। উদ্ভিদবিদ্যার এই চমকপ্রদ ঘটনায় সংশ্লিষ্ট মহলে যথেষ্ট আলোড়ন সৃষ্টি হয়েছে।