ভোটের আগেই আবার উত্তপ্ত হয়ে উঠল কেশপুর | বিজেপি কর্মীদের ছোঁড়া তীরের ঘায়ে গুরুতর আহত হলেন দুই তৃণমূল কর্মী | তাঁদের নাম সঞ্জিত নায়েক ও সাহাবুদ্দিন আলী | দুজনেরই বাড়ি বেলা মহারাজপুর এলাকায় | গ্রামের তৃণমূল পার্টি অফিসে তাঁরা অন্যদের সঙ্গে শনিবার রাতে বসেছিলেন | আরও কয়েকজন ছিলেন | বাড়ি ফেরার জন্য দুজনে একটি মোটরবাইকে উঠতেই সেখানে হাজির হয় বিজেপির কিছু কর্মী | কোনো একটি বিষয় নিয়ে তাঁরা দুপক্ষ বচসায় জড়িয়ে পড়ে | এরপর হাতাহাতি | এসময় তৃণমূল কর্মীদের লক্ষ্য করে তীর ছুঁড়তে থাকেন বিজেপি কর্মীরা | সঞ্জিতের পিঠ ফুঁড়ে তীর ঢুকে যায় | সাহাবুদ্দিনের হাতে তীর লাগে | এরপর তাঁরা মাটিতে পড়ে গেলে মোটরবাইকটিতে ব্যাপক ভাঙচুর চালানো হয় | রাতে খবর পেয়ে বাড়ির লোক ও পুলিশ গিয়ে তাঁদের উদ্ধার করে প্রথমে মেদিনীপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল পরে অবস্থার অবনতি হলে দুজনকেই কলকাতার পিজি হাসপাতালে ভর্তি করা হয় |

এঘটনাকে কেন্দ্র করে নতুন করে রাজনৈতিক উত্তেজনা দেখা দিয়েছে কেশপুরে | শনিবার কেশপুরের শীর্ষা গ্রামে এসে তৃণমূল কর্মীদের হুমকি দিয়ে ঘাটাল লোকসভার প্রার্থী ভারতী ঘোষ বলেন , ‘ ঘর থেকে টেনে বার করে রাস্তায় ফেলে কুকুরের মতো মারব | উত্তরপ্রদেশ থেকে এক হাজার লোক ঢোকাব | তোরা কিছু করতে পারবি না | ঘরে ঢুকে তালা মার্ | ‘ তাঁর হুমিকি দেওয়ার পরই রাতে তৃণমূল কর্মীদের ওপর হামলা চালায় বিজেপি |
তৃণমূলের কেশপুর ব্লকের সভাপতি সঞ্জয় পান জানান , ‘ ভারতী ঘোষ ভোটে দাঁড়ানোর সময় থেকেই কেশপুরে অশান্তি পাকাচ্ছেন | এর আগেও কয়েকবার বহিরাগতদের এনে ঝামেলা করেছেন | স্থানীয় মানুষ বিজেপি ও ভারতীর পাশে নেই | সেই আক্রোশে হামলা | আমরা ভারতীর প্রার্থীপদ বাতিলের দাবি জানিয়েছি নির্বাচন কমিশনের কাছে | তীর চালানোর ঘটনায় এফআইআর করা হয়েছে | ‘
বিজেপির জেলা সভাপতি শমিত দাস জানান , ‘ তীর ছোঁড়ার ঘটনায় বিজেপির কেউ যুক্ত নন | তৃণমূলের দুই গোষ্ঠীর সংঘর্ষে এঘটনা ঘটেছে | ‘

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here