তৃণমূলের হাতে আক্রান্ত দুই সংবাদ মাধ্যমের কর্মী

তৃণমূলের হাতে আক্রান্ত দুই সংবাদ মাধ্যমের কর্মী । জানা যায়, কেশিয়াড়িতে  মুখ্যমন্ত্রীর জনসভায় যোগ দেওয়ার জন্য কেশপুর থেকে গাড়ি যাছিল। একটি বাস কর্মিদের সভায় যাওয়ার জন্য পাম্পে তেল ভরাকে কেন্দ্র করে তৃণমূল কর্মীদের সঙ্গে পেট্রোল পাম্প কর্মীদের গন্ডগোল বাঁধে। সেই খবর সংগ্রহ করতে গিয়ে আক্রান্ত দুই সংবাদ মাধ্যমের কর্মী মৃন্ময় চক্রবর্তী ও সেক ওয়ারেশ আলী। ঘটনাটি ঘটেছে মেদিনীপুর শহরের উপকণ্ঠে ধর্মা পেট্রোল পাম্পের কাছে। এই দুজনকে তৃণমূল কর্মিরা বেধড়ক মারধর করে । ছিনিয়ে নেওয়া হয় মোবাইল, ক্যামেরা, ব্যাগ। ভেঙে ফেলা হয় মোবাইল। ওয়ারেশ ও মৃন্ময় নিজেদের সংবাদ মাধ্যমের কর্মী পরিচয় দিলেও তাদেরকে ছাড়া হয়নি। অভিযোগ পুরো ঘটনার নেতৃত্ব দেন কেশপুর পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতি শুভ্রা দে সেনগুপ্ত। শুভ্রা দে সেনগুপ্তর নির্দেশে দুজনকে রাস্তায় ফেলে মারধর করে প্রায় ৫০/৬০ জন তৃণমূল কর্মী সমর্থকরা। আহত অবস্থায় ঐ দুই সাংবাদিক জল চাইলেও তাদের পানীয় জল পর্যন্ত দেওয়া হয়নি। পরে মেদিনীপুর কোতওয়ালী থানার পুলিশ গিয়ে আহত দুজনকে উদ্ধার করে নিয়ে আসে। গুরুতর আহত ২ জনকে ভর্তি করা হয়েছে মেদিনীপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে। জানা গেছে, যে বাসের যাত্রীরা মারধর করেছে, সেই বাসটি কেশপুর থেকে এসেছিল। পরে অভিযুক্ত কেশপুর পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতি শুভ্রা দে সেনগুপ্তের বিরুদ্ধে কোতওয়ালী থানায় অভিযোগ দায়ের করেন আক্রান্ত দুই সাংবাদিক। ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ। এই ঘটনা তীব্র নিন্দা প্রকাশ করেছেন জেলার সাংবাদিক মহল।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here