কেশিয়াড়িতে বিশেষ সাংগঠনিক বৈঠক করে গেলেন শুভেন্দু অধিকারী। রবিবার কেশিয়াড়ির রবীন্দ্রভবনে এই বৈঠক হয়। দলের নির্বাচিত পঞ্চায়েত সদস্য, পঞ্চায়েত সমিতির সদস্য-সহ বুথ ও অঞ্চলের গুরুত্বপূর্ণ নেতৃত্বদের নিয়ে এই বৈঠক হয়। রবীন্দ্রভবন ভর্তি ছিল এদিন। গত ৩ ডিসেম্বর কেশিয়াড়িতে প্রশাসনিক সভা থেকে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কেশিয়াড়ি পুনরুদ্ধারের দায়িত্ব দেন। গত পঞ্চায়েত নির্বাচনে কেশিয়াড়িতে দাগ কেটেছে বিজেপি। পঞ্চায়েত সমিতি ও গ্রাম পঞ্চায়েতে সংখ্যাগরিষ্ঠতা দেখিয়েছে পদ্ম শিবির। এখনও গঠন হয়নি কেশিয়াড়ি পঞ্চায়েত সমিতির বোর্ড। তার আগে ঘর গোছাতে দলীয় নেত্রীর নির্দেশের পর রবিবার সাংগঠনিক বৈঠক করেন শুভেন্দু। যদিও বাইরের কাউকেই ভেতরে ঢুকতে দেওয়া হয়নি। কেশিয়াড়ির তৃণমূল নেতৃত্বদের বার্তা দেন সবাইকে একসাথে হয়ে কাজ করতে হবে। দলনেত্রীর নির্দেশ মেনে এলাকায় কাজ করতে হবে ক্ষুব্ধ-বিক্ষুব্ধ সব নেতা, কর্মী, সমর্থকদের নিয়ে। এদিন প্রতিনিধি কার্ড দেখিয়ে বৈঠক স্থলে ঢুকতে হয়েছে তৃণমূলের নেতা কর্মীদের। যদিও বৈঠকে ডাক পাননি বলে অভিযোগ কেশিয়াড়ির বিবদমান দুই নেতৃত্ব প্রাক্তন ব্লক সভাপতি জগদীশ দাশ ও তৃণমূল নেতৃত্ব ফটিকরঞ্জন পাহাড়ি। এ নিয়ে ক্ষোভ-বিক্ষোভ ছড়ায় উভয় অনুগামীদের মধ্যে। শুভেন্দু অধিকারী কেশিয়াড়ি ঢোকার সময় দুই নেতার তরফ থেকে শুভেচ্ছা জানানো হয়। অনুগামীরা তাদের ক্ষোভের কথা তুলে ধরেন। কেশিয়াড়িতে আগামী জানুয়ারিতে ফের একগুচ্ছ কর্মসূচির কথা জানিয়ে যান পরিবহনমন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারী। উপস্থিত ছিলেন জেলা পরিষদ সদস্য, কর্মাধ্যক্ষ, বিধায়ক -সহ অন্যান্যরা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here