ঝাড়গ্রাম 19 সেপ্টেম্বর :শুক্রবার বিকেলে বেলপাহাড়ি ব্লকের জয়পুর গ্রামের নবকুমার দাসের ক্যান্সার আক্রান্ত মেয়ে জয়িতার চিকিৎসার জন্য তার হাতে পঞ্চাশ হাজার টাকা তুলে দিয়েছেন শুভেন্দু অধিকারীর সৈনিক স্নেহাশীষ ভকত সৌমেন আচার্য শান্তনু মাহাতো সহ কয়েকজন যুবক l তাদের গলায় ঝোলানো প্লে কার্ডে ছিল শুভেন্দু অধিকারীর ছবি l

৫০০০০ টাকা সাহায্য করে অসুস্থ পরিবারের পাশে দাঁড়ালেন শুভেন্দু। দলের বাইরে ও জঙ্গলমহলে শুভেন্দু অধিকারীর জনসংযোগ কর্মসূচি অব্যাহত রয়েছে l গত কয়েক মাস ধরে তিনি তার প্রতিনিধিদের মাধ্যমে দুস্থ পড়ুয়াদের পড়াশোনার সামগ্রী, করোনা পরিস্থিতিতে গ্রামীণ এলাকার মানুষদের খাদ্য সামগ্রী, মাস্ক-স্যানিটাইজার বিতরণ করে আসছেন l এছাড়াও অসুস্থ মানুষদের পাশে দাঁড়িয়ে চিকিৎসার বন্দোবস্ত করছেন l শুক্রবার বিকেলে বেলপাহাড়ি ব্লকের জয়পুর গ্রামের নবকুমার দাসের ক্যান্সার আক্রান্ত মেয়ে জয়িতার চিকিৎসার জন্য তার হাতে পঞ্চাশ হাজার টাকা তুলে দিয়েছেন শুভেন্দু অধিকারীর সৈনিক স্নেহাশীষ ভকত সৌমেন আচার্য শান্তনু মাহাতো সহ কয়েকজন যুবক l তাদের গলায় ঝোলানো প্লে কার্ডে ছিল শুভেন্দুর ছবি l

গত ১৫ ই সেপ্টেম্বর জয়িতার অন্ধ বাবা নবকুমার দাস শুভেন্দু অধিকারীর  কাছে আবেদন জানান, তার বড় মেয়ে শিলদা কলেজে পাঠরত তৃতীয় বর্ষের ছাত্রী l সে ব্রেস্ট ক্যান্সারে আক্রান্ত এবং ছোটো মেয়ে থ্যালাসেমিয়া রোগাগ্রস্থ l তার স্ত্রী ছোটো একটি মুদির দোকান চালিয়ে কোনরকমে দুবেলা অন্নসংস্থান করে l এই অবস্থায় দুই মেয়ের চিকিৎসা  চালাতে খুবই অসুবিধায় পড়েছেন l

  চিকিৎসাধীন বড় মেয়ে জয়িতাকে ঝাড়গ্রাম সুপার স্পেশালিটি হাসপাতাল থেকে পিজিতে রেফার করা হলে ৫ সেপ্টেম্বর তারা পিজি যান l এরপর তাঁদের  ১৫ তারিখ অপারেশনের ডেট দেওয়া হয় l এই অবস্থায় সমস্যায় পড়েন নবকুমার দাসের পরিবার l  রাত ১২ টা অবধি কোনো সুরাহা করতে না পেরে যোগাযোগ করেন শুভেন্দু অধিকারীর সঙ্গে l  মন্ত্রী সঙ্গে সঙ্গে তার প্রতিনিধি পাঠিয়ে জয়িতাকে ওই হাসপাতলে ভর্তি ও সমস্ত রিপোর্ট তৈরির ব্যবস্থা করেন l পরিবারটির পাশে থাকার আশ্বাস দিয়েছেন শুভেন্দু বাবু l